অডিও এডিটিং সফটওয়্যার

অডিও এডিটিং সফটওয়্যার সম্পর্কে জানার আগে আমাদের জানতে হবে অডিও এডিটিং কি? অডিও এডিটিং হলো আপনি একটা সাউন্ড রেকর্ড করার পরে ওই সাউন্ডটাকে পুনরায় মডিফাই করা। বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় অডিও এডিটিং সফটওয়্যারগুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

অডিও এডিটিং এর প্রয়োজনীয়তা 

আমরা সকলেই কমবেশি গান গেতে পছন্দ করি। একটা গান বা কোন সাউন্ড রেকর্ড করার পরে ওই সাউন্ড টাকে আরও সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার জন্য মূলত আমাদের এডিটিং করার প্রয়োজন হয়। এডিটিং এর মাধ্যমে একটা রেকর্ডিং সাউন্ডকে আরও সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা সম্ভব। 

তবে বর্তমান সময়ে বাজারে অনেক অডিও এডিটিং সফটওয়্যার পাওয়া যায় কিন্তু এর মধ্য থেকে কোন ভালো তা আপনাকে বাছাই করতে হবে।  এই লেখাটির মাধ্যমে আমরা বর্তমান সময়ে সব থেকে ভালো এবং জনপ্রিয় কয়েকটি অডিও এডিটিং সফটওয়্যার সম্পর্কে আলোচনা করব। আপনার অডিও এডিটিং সফটওয়্যার বাছাইয়ে সাহায্য করবে লেখাটি।

অডিও এডিটিং সফটওয়্যার

বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় অডিও এডিটিং সফটওয়্যার গুলো হল FL Studio, Audacity, Adobe Audition, Reaper, Ardour, ইত্যাদি। এই সফটওয়্যার গুলো দিয়ে আপনারা খুব সুন্দর ভাবে একটি অডিওকে মডিফাই করতে পারবেন। 

এছাড়াও এই সফটওয়্যার গুলোর মধ্যে আপনারা পাবেন একটি অডিওতে প্রফেশনাল ভাবে এডিট করার জন্য যতগুলো টুলস প্রয়োজন সবগুলোই। নিউটন ও পুরাতন অডিও এডিটরদের খুব কাজে দেবে এই সফটওয়্যারগুলি। 

আপনি যদি একজন ভয়েস আর্টিস্ট অথবা মেকার বা সংগীতশিল্পী হয়ে থাকেন তাহলেহয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার এডিটিং সফটওয়্যার প্রয়োজন। চলুন উপরে বর্ণিত সফটওয়্যারগুলো এবং সফটওয়্যারগুলোর ফিচারস সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

১. FL Studio

FL Studio সফটওয়্যারটি প্রফেশনালভাবে অডিও এডিটিং এর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে আপনারা অ্যাডভান্স লেভেলের কাজ করতে পারবেন। FL Studio  সফটওয়্যারটির নূতনদের ক্ষেত্রে একটু কঠিন মনে হলেও একটু প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে সহজ মনে হবে।

FL Studio এর কিছু সুবিধাঃ

  • FL Studio সফটওয়্যারটির অন্যতম একটি সুবিধা হল এটিতে আপনারা প্লাগিন হিসেবে অন্য সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারবেন।
  • এই সফটওয়্যারটির নিজস্ব কিছু আলাদা টুলস বা ফিচার আছে। 
  • এই সফটওয়্যারটি দিয়ে আপনারা প্রফেশনালভাবে গান, গজল,  বিজ্ঞাপন ইত্যাদি রেকর্ডিং এবং এডিটিং করতে পারবেন।
  • FL Studio দিয়ে নয়েজ রিমুভ, ইকো, সাউন্ড মিক্সিং, অডিও রিজার্ভ ইত্যাদি সকল ধরনের কাজ করা সম্ভব।

২. Audacity

নূতন অডিও এডিটরদের ক্ষেত্রে সব থেকে জনপ্রিয় সফটওয়্যার হলো Audacity, এই সফটওয়্যারটির কার্যক্রম খুবই সহজ যার কারণে বিগেনার বা নতুনদের কাছে খুবই পরিচিত। এই সফটওয়্যারটি দিয়ে আপনারা বেসিক ধরনের সকল রেকর্ডিং কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন। 

Audacity এর কিছু সুবিধাঃ 

  • Audacity সফটওয়্যারটি সকল ধরনের অপারেটিং সিস্টেমে ব্যবহার করতে পারবেন।
  • সফটওয়্যারটি সম্পূর্ণ ফ্রিতে অডাসিটি এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।
  • ফ্রি সফটওয়্যার হওয়ার পরেও আপনারা অনেক ধরনের আকর্ষণীয় এবং প্রিমিয়াম টুলস পেয়ে যাবে যেমনঃ নয়েজ রিমুভার, রিভার্স, ইকো, অডিও টেম্প এডজাস্ট, অডিও এনহান্স,স্পিড এডজাস্ট, অডিও প্রিছ লেভেল কন্ট্রোল ইত্যাদি।
  • ইচ্ছামতো যেকোনো থার্ড-পার্টি প্লাগিন ব্যবহার করার সুযোগ।
  • যেকোনো কনফিগারেশন এর কম্পিউটারের ব্যবহার।

৩. Adobe Audition 

এডোবি কোম্পানির অন্যতম আরেকটি জনপ্রিয় সফটওয়্যার হলো Adobe Audition, এই সফটওয়্যারটি যেকোনো ধরনের অডিও এডিটিং এর জন্য জনপ্রিয়। এই সফটওয়্যারটির সকল আকর্ষণীয় ফিচারস গুলো একটি প্রফেশনাল অডিও এডিটিং এর ক্ষেত্রে অনেকটা ভূমিকা রাখে।

Adobe Audition এর কিছু সুবিধাঃ

  • এই সফটওয়্যারটির সব থেকে মজার বিষয় হলো আপনারা সরাসরি ভিডিও ফাইল ইমপোর্ট করে অডিও এডিটিং করতে পারবেন। যার কারণে সফটওয়্যারটি ভিডিও এডিটর ও অডিও এডিটরদের কাছে অনেক জনপ্রিয়।
  •  Adobe Audition সফটওয়্যারটিতে রয়েছে সাউন্ড রেকর্ড করার সুযোগ। এবং প্রফেশনাল ভাবে এডিটিং করার জন্য যতগুলো টুলস প্রয়োজন তা সব আছে।
  • সফটওয়্যার টি প্রফেশনাল হওয়ার ফলে  Adobe Audition এর টুলস গুলো দিয়ে ব্রডকাস্টিং এর মত কাজ করা যায়। 
  • নতুনদের ক্ষেত্রে বেশ সুবিধাজনক একটি সফটওয়্যার।

৪. Reaper

Reaper সফটওয়ারটির অন্যতম একটি মজার বিষয় হলো আপনি এখানে কোন লিমিট ছাড়াই অডিও এডিটিং করতে পারবেন। এছাড়াও এই সফটওয়্যারটিতে রয়েছে অনেক অসাধারণ কিছু টুলস যা আপনার অডিওকে আরো সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলবে।

Reaper এর কিছু সুবিধাঃ 

  • Reaper সফটওয়্যারটি যে কোন অপারেটিং সিস্টেমে সাপোর্টেড।
  • নতুনদের ক্ষেত্রে ব্যবহারে অনেক সুবিধা, টুলস গুলো বুঝতে সহজ হবে।
  • Reaper  সফটওয়্যারটির রেকর্ডিং প্রসেস অনেক ভালো, রেকর্ডিংএ আপনারা ইফেক্ট ব্যবহার করতে পারবেন।
  • এই সফটওয়ারটি অনেকটা ইউজার ফ্রেন্ডলি।
  • একসাথে অনেকগুলো টুলস ব্যবহার করা যায়।

৫. Ardour

এটি একটি মাল্টি ট্যাক অডিও এডিটিং সফটওয়্যার।  Ardour সফটওয়্যারটি ইউজার ফ্রেন্ডলি হওয়ার কারণে নূতনদের ব্যবহার করতে অনেক সহজ হবে। সব থেকে মজার বিষয় হলো  Ardour সফটওয়্যারটির ইউজার ইন্টারফেসটা অনেকটা  Adobe Audition এর মত।

Ardour এর কিছু সুবিধাঃ 

  • Ardour সফটওয়ারটি সব ধরনের অপারেটিং সিস্টেমের সাপোর্ট করে।
  • এই সফটওয়্যারটি একই সাথে দুই ধরনের কাজ করতে পারে এডিটর এবং মিক্সার।
  • মাল্টি ট্রাক এবংঅডিও রেকর্ডিং ও অডিও মিক্সিং এর জন্য অসাধারন সকল টুলস।
  • প্রিমিয়াম অসাধারণ সকল ফিল্টার।

উপরে আমরা যেই সকল সফটওয়্যার গুলো সম্পর্কে আলোচনা করেছি এগুলো ব্যবহার করে খুব সহজেই একটি প্রফেশনাল অডিও বা গান এডিটিং করতে পারবেন। এছাড়াও অডিও এডিটিং এর ক্ষেত্রে আরো অনেক সফটওয়্যার রয়েছে।

অডিও এডিটিং করার সফটওয়্যার 

  • Abletom Live
  • Logic pro
  • Studio One 5
  • Ocenaudio
  • Audio Cutter
  • Audiotool
  • Cubase
  • Acon Digital Acoustica
  • Wavosaur
  • Wavepad
  • Audacity

এই সকল সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার করে নতুন এবং পুরাতন এডিটর সুন্দরভাবে একটি প্রফেশনাল অডিও এডিটিং করতে পারবেন। 

এই সফটওয়্যার গুলো কিভাবে ডাউনলোড করবেন 

উপরে উল্লেখিত সফটওয়্যার গুলোর মধ্যে কিছু সফটওয়্যার আছে সম্পূর্ণ ফ্রি এবং কিছু সফটওয়্যার আছে পেইড ভার্সন অর্থাৎ প্রিমিয়াম। ফ্রি সফটওয়্যারগুলো আপনারা তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে সরাসরি ডাউনলোড করতে পারবেন।

এবং প্রিমিয়াম সফটওয়্যারগুলো GetintoPC থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন সম্পূর্ণ ফ্রিতে। এবং ইনস্টলের সময় অবশ্যই আপনার কম্পিউটারের ইন্টারনেট কানেকশন বন্ধ করে নিবেন। অন্যথায় আপনার কাছে লাইসেন্স কি চাওয়া হবে। 

আরো পড়তে পারেন: এড দেখে টাকা ইনকাম

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *