সেভিংস একাউন্ট  কি 

আমাদের  দেশের ব্যাংকগুলোতে সাধারণত দুই ধরণের একাউন্ট খোলা হয়ে থাকে তার মধ্যে একটা হল সেভিংস একাউন্ট এবং অন্যটি হলো কারেন্ট একাউন্ট । আমাদের মধ্যে অনেকেই আছি যারা সেভিংস অ্যাকাউন্ট সম্বন্ধে জানিনা । সেভিংস একাউন্টে  কি কি ধরনের সুযোগ-সুবিধা আছে এবং একটা সেভিংস একাউন্ট খুলতে আমাদের কি কি ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন আজকে এ সম্পর্কে  বিস্তারিত  জানব আমরা।

 সেভিংস একাউন্ট  কি  

সাধারণত আমরা যেটাকে জেনারেল একাউন্ট হিসেবে চিনি সেটাই হলো সেভিংস একাউন্ট ।  আমরা  সঞ্চয় এর উদ্দেশ্যে  ব্যাংকে যে একাউন্ট খুলি তাকে সেভিংস একাউন্ট বলে ।  সেভিংস একাউন্টের মাধ্যমে আমরা টাকা জমা রাখা  এবং টাকা লেনদেন করতে পারব । এমনকি সেভিংস অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে আমরা যদি ব্যাংকে টাকা রাখি তাহলে ব্যাংক আমাদের শতকরা হারে ৪% -৬%  ইন্টারেস্ট দিয়ে থাকে । সেভিংস একাউন্ট এর মধ্যে আমরা  যতবার খুশি টাকা জমা দিতে পারব কিন্তু টাকা উত্তোলনের সময় কিছু বাধ্যবাধকতার নিয়ম আছে যেগুলো মেনে আমাদের টাকা উত্তোলন করতে হবে ।

সেভিংস একাউন্ট হল সর্ব সাধারণের জন্য । আপনার আমানত  টাকা জমা রাখার জন্য আপনি এই দেশের নাগরিক হিসেবে দেশের যে কোন ব্যাংকে একটা সেভিংস একাউন্ট খুলতে পারবেন । সেভিংসএকাউন্ট খুলতে পারবেন খুব সহজে কোন এক্সট্রা ডকুমেন্ট ছাড়াই । এখানে এক্সট্রা ডকুমেন্ট বলতে বুঝিয়েছেন দেশের যে কোন ব্যাংকে একটা সেভিংস  একাউন্ট খোলার জন্য তেমন কোন ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন পড়বে না । কিছু প্রাইমারি ডকুমেন্ট আছে যেগুলো অবশ্যই আপনার জমা দিতে হবে । আপনার সেভিংস একাউন্ট টি আপনার নিজস্ব নামে তৈরি হবে ।   আপনার ন্যাশনাল আইডি কার্ড বা আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ কার্ডে যেই নাম আছে ওই নামে আপনার সেভিংস একাউন্ট তৈরী হবে ।  সেভিংস একাউন্ট তৈরি করার জন্য কিছু প্রাইমারি  কাগজপত্র প্রয়োজন ।

সেভিংস একাউন্ট খুলতে কি কি কাগজপত্র দরকার

 সেভিংস একাউন্ট তৈরি করার জন্য আমাদের কিছু কাগজপত্র প্রয়োজন । সেগুলো হলো

  •  যার নামে অ্যাকাউন্ট খুলতে যাচ্ছেন সদ্য তোলা তার দুই কপি ছবি ।
  • তার নেশনাল আইডি কার্ড এর ফটোকপি ।
  •  আইডি কার্ড যদি না থাকে তাহলে তার জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি ।
  • এবং  যে  নমিনি থাকবে তার দু কপি সদ্য তোলা ছবি ।
  • 500 টাকা অথবা 1000 টাকা প্রয়োজন হবে আপনার অ্যাকাউন্টটি ওপেন করার জন্য ।

ব্যাংক ভেদে এর থেকে যদি বেশি কোন ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন হয় তাহলে ওইখানে কর্মরত ব্যাংক কর্মকর্তারা সেটা আপনাকে জানিয়ে দেবে ।

সেভিংস একাউন্ট এর সুযোগ সুবিধা

সেভিংস একাউন্টের মাধ্যমে আমরা অনেক ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকি । সেভিংস একাউন্ট  খুললে আমরা কিছু সুযোগ-সুবিধা পাবো তা হল ।

  • আমাদের আমানতের সম্পূর্ণ সুরক্ষা  পাব ।
  • অ্যাক্সেস এবং প্রাপ্যতা ।
  • কম স্টার্টআপ প্রয়োজন ।
  • স্বয়ংক্রিয় বিল পরিশোধ ।
  • লক-ইন পিরিয়ড নেই ।
  • নির্দিষ্ট হারে ইন্টারেস্ট ।

ইত্যাদি ইত্যাদি । আমরা সেভিংস একাউন্ট এর মাধ্যমে আরো অনেক ধরনের সুযোগ-সুবিধা  পাব ।

সেভিংস একাউন্ট এর অসুবিধা

সেভিংস অ্যাকাউন্ট এর শুধু সুবিধাই না কিছু অসুবিধাও আছে ।  কিন্তু অসুবিধা গুলো তেমন বড় কোনো অসুবিধা নয় । অসুবিধার থেকে সুবিধার ওজন অনেক বেশি । অসুবিধা গুলো হল

  • ন্যূনতম ব্যালেন্স এর প্রয়োজনীয়তা ।
  • অন্যান্য একাউন্ট এর তুলনায় কম ইন্টারেস্টের হার ।
  • সঞ্চয় উত্তোলনের ফেডারেল  সীমা ।

আপনি সবগুলো ব্যাংকিং সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান’ থেকে সেভিংস একাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন।

আরো পড়তে পারেন: ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *