১ মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা

অনলাইনে যারা কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিসেবে কাজ করতে চান তাদের অবশ্যই জানা দরকার ১ মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা পাওয়া যায়। এবং বিশেষ করে যারা ইউটিউব কিংবা ফেসবুকে কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিসেবে কাজ করেন অথবা ভিডিও আপলোড করেন তাদের অবশ্যই এটা জানা জরুরী। 

আমরা ইউটিউব কিংবা ফেইসবুক সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলোতে ভিডিও আপলোড করি ইনকাম এর আশায়। তাই অবশ্যই আমাদের জানা প্রয়োজন ১ মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা দেয়া হয় এই সকল সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলো থেকে। নিচে সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করা হলো। 

টাকা ইনকাম করার প্ল্যাটফর্ম 

যেহেতু এখানে আমরা কনটেন্ট ক্রিয়েশন  নিয়ে বিস্তারিত বর্ণনা করব এবং ভাল কনটেন্ট আপলোড করে মনিটাইজেশন এর মাধ্যমে ১ মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা পাব এ সম্বন্ধে জানানো হবে। তার আগে চলুন জেনে নেয়া যাক যেসকল প্ল্যাটফর্মগুলোতে আমরা ভিডিও আপলোড করে মনিটাইজেশন থেকে টাকা ইনকাম করতে পারব সেগুলো হলোঃ

  • ইউটিউব
  • ফেসবুক 

বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া এবং ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম হল ইউটিউব এবং ফেসবুক। এই সকল সোশ্যাল মিডিয়ায় গুলোতে ভিডিও আপলোড করে আমরা টাকা ইনকাম করতে পারব। তবে ভিডিও আপলোড করে মনিটাইজেশন এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার জন্য তাদের কিছু রুলস মেনে মনিটাইজেশন এর জন্য আবেদন করতে হবে। 

এবং পরবর্তীতে মনিটাইজেশন পাওয়ার পরে আমাদের ভিডিওতে অটোমেটিকভাবে এড শো করবে এবং ওই এড এর মাধ্যমে আমরা টাকা ইনকাম করতে পারব। এই অ্যাপস থেকে আমরা এক মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা ইনকাম করতে পারব এ সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো। 

১ মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা পাওয়া যায় 

এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে আমাদের কনটেন্ট এর ডিউরেশন এবং কোন দেশ থেকে আমাদের ভিডিও গুলো বেশি দেখা হয় এর উপরে। সাধারণত বলা যায় ১ মিলিয়ন ভিউতে ১০০ থেকে ৩০০ ডলার এর মত ইনকাম করা সম্ভব। তবে ইনকামটা নির্ভর করবে জি ডি পি এর উপরে।

সাধারণত বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান এই সকল দেশগুলোর ক্ষেত্রে জিডিপি অনেক কম পাওয়া যায় যার ফলে আমাদের ইনকাম অনেক কম হবে কিন্তু আমেরিকা, ক্যানাডা, সিঙ্গাপুর এই সকল দেশের জিডিপি অনেক বেশি যার কারণে ইনকাম অনেক বেশি হবে। 

সাধারণতঃ আমেরিকা-কানাডা সিঙ্গাপুরের মতো দেশগুলো থেকে ১ মিলিয়ন ভিউতে ১০০০ থেকে ২০০০ ডলার দেওয়া হয়। আপনার ভিডিও গুলো যদি সিঙ্গাপুর আমেরিকা অথবা ইউরোপ এর মতো দেশগুলো থেকে দেখা হয় সে ক্ষেত্রে আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এছাড়াও আপনার ইনকামে অনেকটা নির্ভর করে ভিডিও ডিউরেশন এর উপরে। আপনার ভিডিও যদি বেশি ডিউরেশন এর হয় যেমন ৮+ মিনিট সে ক্ষেত্রে আপনি কাস্টমাইজ অ্যাড বসাতে পারবেন। এবং ভিউয়ার্স যত বেশি ভিডিওগুলো দেখবে ততো বেশি অ্যাড দেখতে হবে যার ফলে আপনার ইনকাম অনেক বৃদ্ধি পাবে। 

ইউটিউবে এক মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা দেয় 

ইউটিউব থেকে এক মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা ইনকাম করা সম্ভব এটা সঠিকভাবে বলা যাবে না কেননা এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে জিডিপির উপরে এবং আপনার ভিডিও ডিউরেশন এর উপরে। এছাড়াও আপনার ভিডিও যদি টেক রিলেটেড হয় সেক্ষেত্রে বেশি ইনকাম হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

সাধারণত নাটক কিংবা ফানি ভিডিও থেকে টেক রিলেটেড ভিডিও চ্যানেল গুলোতে ভালো ধরনের এড শো করে যার ফলে ইনকামও অনেক বেশি হয়। এবং এই সকল ভিডিও গুলো বিভিন্ন কান্ট্রি থেকে দেখা হয় যার ফলে জিডিপি ভালো পাওয়া যায়। 

সাধারণত বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে আমরা বলতে পারি ইউটিউব থেকে এক মিলিয়ন ভিউতে ১০০-৩০০ ডলার ইনকাম করা সম্ভব। এছাড়াও যদি ইউরোপ আমেরিকা সিঙ্গাপুর থেকে আপনার ভিডিওগুলো দেখে হয় সেক্ষেত্রে ১০০০ ডলারের বেশি ইনকাম করা সম্ভব। 

ফেসবুকে এক মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা দেয় 

বর্তমান সময়ে সবথেকে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম হল ফেসবুক। ফেসবুকের মাধ্যমে ভিডিও আপলোড করে ইউটিউব এর মত টাকা ইনকাম করা সম্ভব আমরা কম বেশি সবাই এই বিষয় সম্পর্কে অবগত আছি। ফেসবুকে এক বিলিয়ন ভিউতে কত টাকা দেয়? এ সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা।

সাধারণত ফেসবুকে ১ মিলিয়ন ভিউতে ৩০০-৬০০ ডলারের মত ইনকাম করা সম্ভব। এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে আপনার ভিডিওর ভিউজ এবং ভিডিও ডিউরেশন এর উপরে। ভিডিওগুলো যত বড় হবে ততো বেশি অ্যাড শো করবে এবং ততো বেশি টাকা ইনকাম হবে। 

সাধারণত ইউটিউব এর থেকে বেশি টাকা ফেসবুকে ইনকাম করা সম্ভব কেননা ফেসবুকের ভিডিও গুলো খুব সহজেই ভাইরাল হয়। এবং ফেসবুকের ভিডিও গুলো তে অনেক বেশী ভিউজ হয়। এর কারণ হলো সহজেই ফেসবুকের ভিডিও গুলো শেয়ার করা সম্ভব। যত বেশি শেয়ার হয় ততবেশি ভিউ হয় যার কারণে ইউটিউব এর থেকে ফেসবুক থেকে বেশি টাকা ইনকাম করা যায়। 

ফেসবুক ও ইউটিউব থেকে ইনকাম এর মাধ্যম 

সাধারণত ফেসবুক এবং ইউটিউব থেকে আপনারা অনেক উপায়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন তার মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয় উপায় হল ইউটিউব চ্যানেল অথবা ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন। ফেসবুক এবং ইউটিউব কর্তৃক প্রেরিত শর্তগুলো পূরণ করে মনিটাইজেশন এর জন্য আবেদন করলে আপনার ফেসবুক পেজ অথবা ইউটিউব চ্যানেলটি মনিটাইজ করে দেওয়া হবে। 

এর ফলে আপনার চ্যানেল বা পেজের ভিডিওতে বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন শো করবে এবং এই বিজ্ঞাপনগুলো দর্শকরা যত বেশি দেখবে ওই কন্টেন ক্রিয়েটরকে বিজ্ঞাপনের ইনকাম থেকে কিছু পার্সেন্ট দেওয়া হবে। এছাড়াও আপনারা ইউটিউব কিংবা ফেসবুক থেকে বিভিন্ন পদ্ধতিতে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

  • ইউটিউব চ্যানেল কিভাবে ফেসবুক পেজ মনিটাইজেশন।
  • স্পন্সর এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম।
  •  বিভিন্ন প্রোডাক্ট রিভিউ করে ইনকাম।
  • এফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে টাকা ইনকাম। 
  • প্রোডাক্ট বিক্রি করে টাকা ইনকাম। 

প্রিয় পাঠকবৃন্দ আশা করি ১ মিলিয়ন ভিউতে কত টাকা দেয় ইউটিউব এবং ফেসবুক থেকে এই সম্পর্কে আপনার ধারণা পেয়েছেন। বর্তমান সময়ে সাধারণত মনিটাইজেশন উপায়ে টাকা ইনকামের জন্য সবথেকে জনপ্রিয় হলো ইউটিউব এবং ফেসবুক। এসকল সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য গুলো জানতে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

আরো পড়তে পারেন: ইউটিউবে ভিডিও ভাইরাল করার উপায়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *